• রবিবার ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    ১০ মুহররম: সত্য প্রতিষ্ঠায় আত্মত্যাগের অনন্য ইতিহাস

    অনলাইন ডেস্ক | ২৯ আগস্ট ২০২০ | ৯:৪০ অপরাহ্ণ

    ১০ মুহররম: সত্য প্রতিষ্ঠায় আত্মত্যাগের অনন্য ইতিহাস

    ছবি: সংগৃহীত

    মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান: আরবি বর্ষপঞ্জিকার প্রথম মাস মুহাররম। মহররম মাসের গুরুত্ব ও মর্যাদা সীমাহীন। এই মাসের ১০ তারিখকে ‘ আশুরা ‘ বলা হয়। ১০ ই মহররম ঘটনাবহুল এক ইতিহাসের নাম। হাদিস শরিফে বর্ণীত আছে যে, মহররম মাসের ১০ তারিখে পৃথিবী সৃষ্টি করা হয়েছে, আবার ১০ ই মুহররম ই পৃথিবী ধ্বংস করা হবে।

    ১০ই মহররমকে ঘিরে রয়েছে অসংখ্য ঘটনা:
    ★মানবজাতির আদি পিতা হজরত আদম (আঃ)কে সৃষ্টি করা হয়েছে।
    ★লওহে মাহফুজকে সৃষ্টি করা হয়েছে।
    ★নদনদী, পাহাড়-পর্বত,সাগর মহা সাগর, সৃষ্টি করা হয়েছে।


    ★জিব্রাইল (আঃ) আল্লাহর রহমত নিয়ে আদম (আঃ) নিকট প্রথম উপস্থিত হয়েছিলেন।
    ★মুসা (আঃ) তূর পাহাড়ে আল্লাহতায়ালার সাথে কথোপকথন ও তাওরাত কিতাব লাভ করে ছিলেন।
    ★ইব্রাহীম (আঃ)নমরুদের অগ্নিকান্ড থেকে নাজাত পেয়েছিলেন।
    ★আইয়ুব(আঃ)রোগ মুক্তি লাভ করেছিলেন।

    ★ইউনুস (আঃ)মাছের পেট থেকে উদ্ধার পেয়েছিলেন।
    ★ইয়াকুব (আঃ)পুত্র ইউসুফ (আঃ)কে ফিরে পেয়েছিলেন।
    ★ঈসা (আঃ) মরিয়ম (আঃ)এর গর্ভে জন্ম লাভ করে ছিলেন।
    ★অত্যাচারী জালেম ফেরাউনের হাত থেকে বনী ইসরাইল নাজাত লাভ করেছিলেন।
    ★নূহ (আঃ)ঝড়তুফানের কবল থেকে মুক্তি লাভ করেছিলেন।


    ★হজরত মোহাম্মদ (সাঃ) এর প্রিয় দৌহিত্র ইমাম হুসাইন (রাঃ) তার সঙ্গীসহ কারবালার প্রান্তরে শাহাদাত বরণ করেছিলেন।
    কারবালার প্রান্তরে ইমাম হুসাইন (রাঃ) এর শাহাদাতের সংঘটিত ঘটনা ঘটেছিল ১০ ই মুহররম।
    যে ঘটনা ছিল আত্মত্যাগের অনন্য এক দৃষ্টান্ত। জালেমের সামনে মাথা নত না করার ইতিহাস। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে নিজের জীবন অকাতরে বিলিয়ে দেওয়ার ইতিহাস।

    অন্যায়ের প্রতিবাদ ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য আত্মত্যাগের এক অনুকরণীয়, অনু সরণীয় বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম ‘ আশুরা ‘ বা ১০ ই মহররম।


    আশুরার রোজা –
    হজরত আব্বাস (রাঃ)হতে বর্ণীত আছে যে, নবীকরিম (সাঃ) যখন মদিনায় আগমন করলেন, তখন দেখলেন ১০ ই মুহররম ইহুদীরা রোজা রাখে। নবীকরিম (সাঃ) তাদের জিজ্ঞেস করলেন, এটা কোনদিন যে তোমরা রোজা রাখো? ইহুদীরা বললো এটা এমনদিন যে, আল্লাহতায়ালা মুসা (আঃ) ও তার সম্প্রদায়কে মুক্তি দিয়েছিলেন ফেরাউনের অত্যাচার থেকে। তাই আল্লাহতায়ালার শুকরিয়া আদায়ার্থে আমরা রোজা রাখি।

    তখন নবী করিম (সাঃ) বললেন, তোমাদের তুলনায় আমরা মুসা (আঃ) সাথে ঘনিষ্ঠ। আমরা তোমাদের থেকে এর হকদার বেশি। তারপর তিনি মুহররমের ১০ তারিখের সাথে মিলিয়ে আগে পরে আরও একটি রোজা মিলিয়ে অর্থাৎ দুটি রোজা রাখার জন্য উম্মতকে নির্দেশ করলেন।

    মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান
    যুগ্ম সম্পাদক
    ইসলামীঐক্যজোট
    ব্রাহ্মণবাড়িয়াজেলা

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৯:৪০ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২৯ আগস্ট ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved