• শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    সমকামিতা: বিকৃত মানসিকতার ভয়াবহ শাস্তি

    আমিন মুনশি | ০৯ জুলাই ২০২০ | ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ

    সমকামিতা: বিকৃত মানসিকতার ভয়াবহ শাস্তি

    ছবি: প্রতীকী

    বর্তমান সময়ে সমকামিতার নামে বিশ্বব্যাপী যে কুপ্রথার প্রসার ঘটছে এটা নিতান্তই অসামাজিক ও অসুস্থ মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ। আশ্চর্যের ব্যাপার হলো, বন্য জন্তু-জানোয়ারও তাদের যৌন চাহিদা মিটানোর জন্য স্বাভাবিক নিয়মে বিপরীত লিঙ্গের দ্বারস্থ হয়। কুকুর-বিড়ালও সমলিঙ্গের কারো সঙ্গে যৌন চাহিদা পূরণে সামান্যতম আগ্রহী নয়। সেখানে সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ সমকামিতার মত ঘৃণ্য অপরাধটিকে ‘আধুনিকতা’ এবং ‘অধিকারের’ কথা বলে অব্যাহতভাবে পাপাচারকে প্রসারিত করছে! এই ধরনের মানুষকে উদ্দেশ্য করেই পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেছেন, তারা চতুষ্পদ জন্তু-জানোয়ারের মতো। বরং তার চেয়েও নিকৃষ্ট। (সুরা আরাফ: ১৭৯)

    ইতিহাস সাক্ষী, অভিশপ্ত কওমে লূত সমকামের অপরাধে ধ্বংস হয়েছিল। হজরত লূত (আ.) তাদেরকে বারবার হালাল পন্থায় নারীদের সঙ্গে যৌন চাহিদা পূরণ করার অনুরোধ করেছেন। কিন্তু সেই জাতি তা মানেনি। ফলাফল কী হয়েছিলো? আল্লাহ তায়ালা হজরত জিবরাইলকে (আ.) পাঠিয়ে কওমে লূতকে আজাব দিলেন। ধ্বংস করে দিলেন গোটা জনপদ। পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে, ‘অতঃপর যখন আমার হুকুম এসে পৌঁছল, এরপর যখন আমার সিদ্ধান্ত কার্যকর হলো, তখন আমি জনপদের উপরিভাগ নিচে এবং নিম্নভাগ উপরে উঠালাম এবং তার উপর স্তরে স্তরে কাঁকর-পাথর বর্ষণ করলাম। (সুরা হুদ: ৮২)


    কওমে লুতের বাড়িঘর ধ্বংসপ্রাপ্ত রূপই আজকের ‘ডেডসি’ বা মৃত সাগর। সেখানেই মর্মান্তিক আজাব দিয়েছিলেন আল্লাহ মহান- আজও সে জনপদে কোনো প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। সমকামিতা সম্পর্কে অন্যত্র আল্লাহ তায়ালা বলেন, আমি লূতকে প্রেরণ করেছি, যখন সে স্বীয় সম্প্রদায়কে বলল তোমরা কি এমন অশ্লীল কাজ করছ? যা তোমাদের পূর্বে বিশ্বের কেউ করেনি। তোমরা তো নারীদের ছেড়ে কামবশতঃ পুরুষদের কাছে গমন কর। বরং তোমরা সীমা অতিক্রম করেছো। (সুরা আরাফ: ৮০-৮১)

    হজরত আবু মুসা আশআরী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, যে পুরুষ পুরুষের সাথে নোংরা কাজে লিপ্ত হয়, উভয়ে ব্যভিচারকারী হিসেবে সাব্যস্ত হবে। তেমনি যে নারী আরেক নারীর সঙ্গে কুকর্মে লিপ্ত হয় উভয়ে ব্যভিচারকারী হিসেবে সাব্যস্ত হবে। (শুয়াবুল ঈমান) হজরত জাবির (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, আমি আমার উম্মতের জন্য সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটা আশঙ্কা করি সেটা হলো লূতের উম্মত যা করত সেটার অনুসরণ করা। (তিরমিজি শরিফ)


    অন্যত্র রাসুল (সা.) বলেন, আমার উম্মতের মধ্যে যখন পাঁচটি জিনিস আরম্ভ হবে তখন তাদেরকে নানা প্রকার রোগ-ব্যাধি ও আজাবের মাধ্যমে ধ্বংস করে দেয়া হবে। তন্মধ্যে একটি হলো, নরনারীর মধ্যে সমকামিতা প্রচলিত হওয়া। (মুসনাদে আহমদ) হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, যাদেরকে তোমরা লূতের সম্প্রদায়ের কাজে (সমকামিতা) লিপ্ত দেখবে তাদের উভয়কেই হত্যা করো। (তিরমিজি: ৪/৫৭; আবু দাউদ: ৪/২৬৯; ইবনে মাজা: ২/৮৫৬)

    হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, তোমরা যদি কাউকে পাও যে লূতের সম্প্রদায় যা করত (সমকামিতা) তা করছে, তবে তাকে হত্যা করো। যে করছে তাঁকে আর যাকে করা হচ্ছে তাকেও। (আবু দাউদ: ৪৪৪৭)


    লেখক: সাব-এডিটর, কওমীনিউজ.কম

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved