• শুক্রবার ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    মধ্যরাতে গোপন বৈঠক, বেফাক দখলের ষড়যন্ত্র

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৭ জুলাই ২০২০ | ১:১২ অপরাহ্ণ

    মধ্যরাতে গোপন বৈঠক, বেফাক দখলের ষড়যন্ত্র

    ছবি: সংগৃহীত

    বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের সাম্প্রতিক বিষয়াবলী নিয়ে গোটা দেশ আজ আলোচনা-সমালোচনায় মুখরিত। দুর্নীতিবাজ শাহেদ কান্ডের পরই বাংলাদেশের মুখ্য আলোচনা বেফাক কমিটির অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, ষড়যন্ত্র এসব বিষয়। এতকিছুর পরও বেফাক নিয়ে চলছে ষড়যন্ত্রের পর ষড়যন্ত্র। এক পক্ষকে ঘায়েল করে আরেকপক্ষের বেফাক দখলের অবিরাম অপচেষ্টা। বস্তুতঃ যাদের অনিয়ম-দুর্নীতি আলোচনায় এসেছে তারা যেমন দোষী বর্তমানে যারা তাদেরকে ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন তারাও কিন্তু এরচেয়ে আরো বহুগুণ দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার দোষে দোষী।

    তাদেরও রয়েছে দুর্নীতি ও অনিয়মের বিশাল ফিরিস্তি। তারাও গোপন ষড়যন্ত্র অতীতে করেছেন, এখনও করছেন। বেফাক নিয়ে ষড়যন্ত্র যেন থেমে নেই। সাবেক মহাসচিব আব্দুল জব্বার রহ. বেঁচে থাকতে যেমন তার বিরুদ্ধে বহু ষড়যন্ত্র করা হয়েছে, রাতকে রাত গোপন বৈঠক করা হয়েছে, বিভিন্ন লবিং করা হয়েছে বেফাকের ভেতর-বাহিরে, সিন্ডিকেট তৈরি করা হয়েছে, সেই চক্রটি এখনো সক্রিয়। এখনো তাদের স্বার্থসিদ্ধি না হওয়ার কারণে বেফাক দখলে নিতে না পেরে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে তারা। এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার (১৫ জুলাই ২০২০) দিবাগত মধ্যরাত পর্যন্ত বারিধারা মাদরাসায় একটি মেরাথন গোপন বৈঠক চলে।


    একটি সূত্র কওমীনিউজকে জানায়, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের একাংশের মহাসচিব মাওলানা নুর হোসেন কাসেমীর নেতৃত্বে তার মাদরাসায় গোপন ওই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে তারা মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুসকে সরিয়ে বেফাকের বর্তমান মহাপরিচালক যুদ্ধাপরাধী মামলার আসামী, এককোটি চল্লিশ লাখ টাকার স্টিল বিল্ডিং দুর্নীতির সহনায়ক অধ্যাপক যোবাইর আহমদ চৌধুরীকে মহাপরিচালকের সাথে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব করা এবং মাওলানা নুর হোসেন কাসেমীকে নির্বাহী সভাপতি করার সিদ্ধান্ত নেয়। এবং একই ব্যক্তিকে মহাসচিব ও মহাপরিচালক হওয়ার সাংবিধানিক বৈধতা দেয়ার সকল পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হয়।

    বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া, মাওলানা ফজলুল করিম কাসেমী, মাওলানা নাজমুল হাসান, মাওলানা মুসলেহ উদ্দিন রাজু ও মাওলানা মনির হোসেন কাসেমীসহ জমিয়তের আরও অনেক নেতা।


    সূত্রটি আরও জানায়, বৈঠকে বসেই মাওলানা নুর হোসেন কাসেমী বেফাকের মহাপরিচালক যোবাইর আহমদকে মোবাইলে বৈঠকে সংযোগ করেন। এছাড়া ঢাকা ও সিলেটের একাধিক বেফাক সদস্যকেও মোবাইলে কথা বলে বৈঠকে শরিক করেন।

    উল্লেখ্য, মাওলানা কাসেমীর একই সাথে কয়েকজনকে বেফাকের পরবর্তী মহাসচিব করার টোপ দিয়ে চলমান ফেসবুকীয় আন্দোলন চাঙ্গা রাখার অপকৌশল প্রকাশ পেয়ে যাওয়ায় বর্তমান মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুসবিরোধী আন্দোলন অনেকটাই ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েছে। তিনি মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা মুসলেহ উদ্দিন রাজু ও মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়াসহ আরও বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তিকে মহাসচিব বানানোর টোপ দিয়ে তার মিশন বাস্তবায়নের কাজে ব্যবহার করছিলেন। শেষ পর্যন্ত তার এই কূটকৌশল তাদের সবার কাছে স্পষ্ট হয়ে যাওয়ায় তথাকথিত দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলন, রহস্যজনক লেখকের ফেসবুক গরম করা লেখা অনেকটাই প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে স্তিমিত হয়ে যায়।


    এসব অসন্তোষ কমিয়ে আনার জন্য তার হয়ে জমিয়তের তিন নেতা হন্যে হয়ে সকলের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। আর বারিধারা মাদরাসায় চলছে একের পর এক ষড়যন্ত্রমূলক গোপন বৈঠক।

    কওমীনিউজ/মুনশি

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ১:১২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১৭ জুলাই ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved