• বুধবার ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    বাবরি মসজিদ দিবসে বিভিন্ন সংগঠনের নিন্দা

    বাবরি মসজিদ ধ্বংস কখনো উম্মাহ ভুলতে পারবে না: মাওলানা আশরাফুল হক

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৬ ডিসেম্বর ২০২০ | ১১:০০ অপরাহ্ণ

    বাবরি মসজিদ ধ্বংস কখনো উম্মাহ ভুলতে পারবে না: মাওলানা আশরাফুল হক

    ফাইল ফটো

    আজ ৬ ডিসেম্বর। ১৯৯২ সনের এ দিনে ভারতের অযোধ্যায় বহুল আলোচিত ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদে দেশটির উগ্র ও ধর্মান্ধ সন্ত্রাসী হিন্দুরা হামলা করে ধ্বংস করে দেয়। তখন গোটা বিশ্বে এর প্রতিক্রিয়ায় ভারতের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদে ফেটে পড়ে। বাংলাদেশে ভারতের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক লংমার্চ অনুষ্ঠিত হয়। সে ঘটনার পর থেকে সমগ্র বিশ্বে দিনটিকে ‘বাবরি মসিজিদ দিবস’ হিসাবে পালন করে আসছে।

    এ উপলক্ষে আজ বাংলাদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও ইসলামী সংগঠন নানাভাবে ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ শহিদ করার জন্য ভারতের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে।


    জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির পক্ষে রবিবার (৬ ডিসেম্বর ২০২০) রাজধানীতে পার্টির নির্বাহী সভাপতি মাওলানা একে এম আশরাফুল হকের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। মাওলানা মুমিনুল ইসলামের পরিচালনায় এতে আরো বক্তব্য রাখেন, মাওলানা আব্দুল্লাহ, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা আব্দুস সাত্তার, মাওলানা ফারুক আহমদ, মাওলানা হাবিবুল্লাহ আশরাফী ও আমির হোসেন হিরা প্রমুখ।

    পবিত্র মসজিদের জায়গায় মন্দির স্থাপনের প্রক্রিয়ার তীব্র প্রতবিাদ ও নিন্দা জনিয়েছেন বিশ্ব মুসলিম পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা একে এম আশরাফুল হক ও মহাসচিব মাওলানা মুমিনুল ইসলাম।


    সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা একে এম আশরাফুল হক বলেন, আজকের এই দিনে ১৯৯২ সনে গণতন্ত্রের ধ্বজাধারি, কথিত ধর্মনিরপেক্ষ দেশ ভারতের আসল রূপ বিশ্ববাসি দেখেছিল। মুসলমানদের প্রতি তাদের সন্ত্রাস ও আগ্রাসনের ভয়ঙ্কর চিত্র সেদিন দেখা গেছে। বাবরি মসজিদ ধ্বংস করে ওই দিন ভারত মুসলমানদের অন্তর, ঈমান ও ধর্মে আঘাত দিয়েছে।

    তিনি আরো বলেন, বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মাধ্যমে হাজার বছর যাবত যে মুসলমানরা ভারত শাসন করেছে সেই দেশে আজ তাদের নাগরিক ও ধর্মীয় অধিকার হরণ করা হয়েছে। দেশটি থেকে মুসলমানদের তাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। রাষ্ট্রীয়ভাবে মুসলমানদের নাগরিক, মানবিক ও ধর্মীয় স্বাধীনতা হরণ করা হচ্ছে। যুগোস্লাভিয়া ও মায়ানমারের মতো ভারতকেও মুসলিম শূন্য করার নীল নকশা বাস্তবায়ন করছে বলেও এসময় তিনি মন্তব্য করেন।


    তারা আরো বলেন, ভারত রাষ্ট্রীয়ভাবে সন্ত্রাস বিস্তার করে গোটা উপমহাদেশকে অস্থিতিশীল করার পায়তারা করছে। এ অঞ্চলের প্রায় পুনে দুশো কোটি মানুষের শান্তি-নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে। তাই অবিলম্বে বাবরি মসজিদের স্থানে মন্দির নির্মাণ বন্ধ করে, মসজিরদের জয়গায় মনসজিদ নির্মান করার জোর দাবি জানান তারা।

    আর যদি ভারত সরকার এই সন্ত্রাসী চিন্তা ও কর্মকান্ড থেকে বিরত না হয়, মন্দির নির্মাণ প্রক্রিয়া বন্ধ না করে, তাহলে ওআইসি, জাতসিংঘসহ সকল মুসলিম রাষ্ট্রের প্রতি ভারতকে বয়কটের আহ্বান জানান তারা। অর্থনৈতিক, সামরিকসহ সব ধরনের সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করাতে বাংলাদেশ সরকারসহ সকল মুসলিমরাষ্ট্র প্রধানদের প্রতি জোর দাবি জানান।

    সাম্প্রতিক ভাষ্কর্য বিতর্কে তিনি বলেন, ভাষ্কর্য ইসলামে কোনভাবেই অনুমোদিত নয়, একথা দেশ, জাতি, সরকার ও মিডিয়াকে অবগত করা আলেম -উলামার মহান দায়িত্ব। ভাষ্কর্য ভাঙ্গা সরকারের দায়িত্ব। সুতরাং ভাষ্কর্য ভাঙ্গা কোন আলেম-উলামার দায়িত্ব নয় যেমন, তেমনি ভাষ্কর্যের বিষয়ে ইসলামের অবস্থান ব্যখ্যা, আলেমদের ওয়াজে বাধা দেয়ার অধিকারও কারও নেই। তাই তিনি সাম্প্রতিক দেশের এই সংকট নিরসন করে জাতিকে সংঘাত-সংঘর্ষ থেকে উদ্ধার করার লক্ষে গতকালকে দেশের শীর্ষ আলেমদের পক্ষে ঘোষিত ৫ দফা দাবি সরকারকে মেনে নেয়ার আহ্বান জানান।

    এছাড়াও আজকের বাবরি মসজিদ দিবসে ঐতিহাসিক ওই মসজিদটি ধ্বংসের বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে যেসব সংগঠন, তা হচ্ছে- বিশ্ব মুসলিম পরিষদ, খেলাফতে রব্বানী, বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষক সমিতি, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসমাজ, জাতীয় মুসল্লি কমিটি ও প্যান ইসলামিক ওরগানাইজেশন বাংলাদেশ ইত্যাদি।

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ১১:০০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2021 qaominews.com all rights reserved