প্রচ্ছদ মনীষী জীবন, স্লাইডার

বাংলা ভাষায় তাফসীরের ইমাম আল্লামা শামসুল হক দৌলতপুরী রহ.

মাওলানা শাহ আসগর আলী | মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৫ | পড়া হয়েছে 2231 বার

বাংলা ভাষায় তাফসীরের ইমাম আল্লামা শামসুল হক দৌলতপুরী রহ.

শিক্ষা ও জ্ঞান দ্বার যারা দেশ ও জাতিকে করেছেন আলোকিত, সমাজ ও মুসলিম উম্মাহকে দিয়েছেন হেদায়াতের দিক নির্দেশনা, কোরআন ও হাদীসের আলোকে নিজের জীবন গড়ে যারা সমাজে নিজেকে ইসলামী আদর্শরূপে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, তাদেরই একজন শাইখুল হাদীস আল্লামা শামসুল হক দৌলতপুরী রহ.।

বহুগুণের অধিকারী এবং গভীর জ্ঞানের আধার ছিলেন তিনি। একাধারে তিনি ছিলেন প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ, তাফরিকারক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক ও সাহিত্যিক।

কোরআন ও হাদীসের বর্ণনা অনুযায়ী একজন মুত্তাকী ও ওলীর যা গুণাবলী রয়েছে, তা সবই মরহুম শাইখুল হাদীস ওয়াত্ তাফসীর রহ.-এর মধ্যে বিদ্যমান ছিল। তিনি একজন আত্মপ্রচার বিমুখ লোক ছিলেন। অত্যন্ত সহজ-সরল ও সাদাসিদে জীবন যাপন করতেন তিনি। লৌকিকতার লেশমাত্র ছিলনা তাঁর মধ্যে। নির্লোভ ও নিরঅহঙ্কার মহামনিষী ছিলেন তিনি। সদা সর্বদা সুন্নত পাবন্দের আদর্শ প্রতিচ্ছবি তিনি ছিলেন। কোরআনে হাফেয ছিলেন না বটে, তবে সর্বদাই কোরআন তেলাওয়াতরত থাকতেন তিনি। সর্বক্ষণ অযুর সাথে অবস্থান করতেন। সামান্য ফুরসতেই নফল নামায পড়তেন তিনি।

শাইখুল হাদীস আল্লামা শামসুল হক রহ. বি-বাড়ীয়া জেলার নাসিরনগর থানাধীন দৌলতপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে আনুমানিক ১৯২৯-৩০ খ্রিস্টাব্দের ঈদুল আযহার দিন সুবহে সাদেকের সময় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মিজায আলী, মাতার নাম কুরতন বিবি।

পারিবারিক পরিবেশে অতি অল্প সময়ে তিনি পাঠশালার লেখাপড়া ও মক্তবের শিক্ষা শেষ করেন। পাঠশালা সমাপনী পরীক্ষায় অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে বৃত্তি লাভ করে বাল্যকালেই তিনি মেধার স্বাক্ষর রাখেন। অতপর দ্বীনের একজন খাটি আলেম বানানোর লক্ষ্যে তাঁর পরহেযগার পিতা নিকটবর্তী এক মাদরাসায় ভর্তি করে দেন। সেখানে তিনি আরবী, উর্দূ ও ফার্সীর সাথে বাংলাও অধ্যয়ন করেন। এ সময় তাঁর পিতার ইন্তেকাল হয়। এরপর স্নেহময়ী মাতা ও দাদা আব্দুল গণীর তত্ত্বাবধানে তাঁর লেখাপড়ার কাজ চলতে থাকে। এখানে লেখাপড়া শেষ হওয়ার পর ঢাকার হুসাইনিয়া আশরাফুল উলূম বড় কাটারা মাদরাসায় তাঁকে ভর্তি করে দেয়া হয়। সেখানে তিনি একাধারে ৮বছর অধ্যয়ন করে কৃতিত্বের সাথে দাওরায়ায়ে হাদীসের সনদ লাভ করেন।

অতপর উচ্চতর শিক্ষা ও জ্ঞান লাভের জন্য তিনি পান্জাবের প্রসিদ্ধ মাদরাসা খায়রুল মাদারিসের উদ্দেশ্যে সুদূর পাকিস্তান গমন করেন। সেখান থেকে তিনি অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে কোরআন ও হাদীস এবং ফুনূনাতের উপর প্রথম শ্রেণীতে উচ্চতর ডিগ্রী লাভ করেন।

তাঁর উস্তাদদের মধ্যে উল্লেখযোরা হচ্ছেন হাকীমুল উম্মাত হযরত থানবী রহ.-এর বিশিষ্ট খলিফা হযরত খায়ের মুহাম্মদ রহ., দেওবন্দের সাবেক শাইখুল হাদীস হযরত শরীফ কাশ্মীরী রহ., মাওলানা আব্দুল ওয়াহাব পীরজী হুজুর রহ. ও শাইখুল হাদীস হযরত মাওলানা ওয়াহিদুজ্জামান রহ. প্রমুখ।  চলবে…

কওমীনিউজডটকম/এইচ

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আর্কাইভ