প্রচ্ছদ সাহিত্য

বাংলা বর্ষবরণ সাম্প্রদায়িকতার ছোবল মুক্ত হোক

আমিন মুনশি | বৃহস্পতিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৭ | পড়া হয়েছে 809 বার

বাংলা বর্ষবরণ সাম্প্রদায়িকতার ছোবল মুক্ত হোক

প্রত্যেক জাতির একটি নিজস্ব ইতিহাস-ঐতিহ্য থাকে । একান্ত কিছু রীতি ও আচরণিক বৈশিষ্ট্য থাকে । থাকে বৈসাদৃশ্যপূর্ণ সাংস্কৃতিক পরিচয়। এসবের মধ্য দিয়েই ফুটে উঠে সেই জাতির সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের ধর্মীয় বিশ্বাস ও মূল্যবোধের প্রভাব। আবহমানকাল থেকে বছর বা সাল গণনার জন্য বছরের প্রথম দিনটিতেই নতুন বছরের আগমন উপলক্ষে নানা রকম আনুষ্ঠানিকতার রেওয়াজ চলে এসেছে । এটাকে নববর্ষ উদযাপন আবার বর্ষবরণও বলা হয়ে থাকে।

গ্রীক তথা খৃষ্ট সনের ধারক ও বাহক হচ্ছে পশ্চিমের খ্রিষ্টপ্রধান দেশগুলো তাই তাদের বর্ষবরণের পদ্ধতিতে খ্রিস্টধর্মের প্রভাব সুস্পষ্ট। ইরান একটি ইসলামী প্রজাতন্ত্র; তাই তাদের নওরোজ বা নববর্ষ উদযাপনেও ইসলামী রীতি-আচরণের প্রভাব আবশ্যিকভাবে সুস্পষ্ট। এটা হতেই পারে। একজন মানুষের সবকাজের মধ্যেই তার বিশ্বাস ও আদর্শের ছাপ থাকবে- এটাই তো স্বাভাবিক। এতে কারো রাগ বা দুঃখ করার কিছু নেই। প্রতিবাদ করারও অধিকার নেই। তবে প্রতিবাদ বা সমালোচনার বিষয়টি তখনই আসে যখন কোন জাতির উৎসব পালনে সেই জাতির নিজস্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ভিনদেশি রীতি বা বিজাতীয় অপসংস্কৃতি চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়।

আমাদের এই বাংলাদেশ একটি উদার মুসলিম গণতান্ত্রিক দেশ। এদেশের প্রায় ৯২ভাগ মানুষ কুরআন-সুন্নাহের আদর্শে বিশ্বাসী। বাকি আরো যেসব আদর্শের মানুষ এখানে বসবাস করেন তারা প্রত্যেকে তাদের স্ব স্ব আচার-আচরণ নির্বিঘ্নে পালন করে থাকেন। তারপরও কিছু কুচক্রিমহল এদেশে নানা সময়ে নানা উপায়ে বিষবাষ্প ছড়াতে উন্মুখ। সংখ্যগরিষ্ট মুসলিম দেশ হিসেবে অন্যান্য জাতীয় উৎসবের মত বাংলা নববর্ষ উদযাপনেও মুসলিমদের আদর্শ বা কৃষ্টি-কালচার এখানে প্রাধান্য পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হচ্ছে এখন তার উল্টো ।

প্রগতিশীলতার কথা বলে একটি নির্দিষ্ট আধিপত্যবাদের সংস্কৃতি গোটা জাতির উপর চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। ধর্মনিরপেক্ষতার দৃষ্টিতেও যে বিষয়টি অগ্রহণযোগ্য এবং সাম্প্রদায়িক চক্রান্ত বলে বিবেচিত। রাখিবন্ধন, ভাইফোঁটা, সিঁদুর, তিলক, উল্কি- এসবের সাথে হিন্দু ধর্মের মৌলিক সম্পর্ক বিরাজমান। মঙ্গল শোভাযাত্রা, মঙ্গল প্রদীপ, মুখোশ, প্রতিমা, ঢোল-বাদ্য হিন্দুদের পূজা মণ্ডপের সুনির্দিষ্ট আবশ্যিক বৈশিষ্ট্য। অথচ এগুলিকেই প্রচার করা হচ্ছে বাঙ্গালী সংস্কৃতি বলে। ভারতীয় আধিপত্যবাদ বিস্তারে দীর্ঘদিন ধরে যারা কাজ করছেন তারাই জাতীয় ঐতিহ্যকে এভাবে পদদলিত করার দুঃসাহস দেখাচ্ছেন। হিন্দুত্ববাদী সংস্কৃতি যেমন এ দেশের অধিকাংশ মানুষের জীবনাদর্শের প্রতিনিধিত্ব করেনা, ঠিক তেমনি সাম্প্রদায়িকতার এই অপচ্ছায়াকে শিগগিরই দূরীভূত করা না গেলে এর ছোবল থেকে রক্ষা করা যাবেনা এদেশের প্রকৃতি ও শান্ত পরিবেশকে।

qaominews.com/কওমীনিউজ/এএন

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আর্কাইভ