প্রচ্ছদ কলাম, ধর্ম-দর্শন, স্লাইডার

কওমীনিউজ’র উপদেষ্টা, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও লেখককের কলাম

বন্যার্তদের সাহায্য করুন, তবে কোরবানি বাদ দিয়ে নয়

মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী | সোমবার, ২১ আগস্ট ২০১৭ | পড়া হয়েছে 628 বার

বন্যার্তদের সাহায্য করুন, তবে কোরবানি বাদ দিয়ে নয়

ছবি- ফাইল ফটো

মুসলিম সমাজে একশ্রেণির লোক এমন সবসময়ই ছিল যারা ইসলাম সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ। যেমন, কেউ কেউ মত প্রকাশ করে যে পশু কোরবানী না দিয়ে সমপরিমাণ অর্থ দান করে দিলে আরও ভালো হয়। এতে নাকি পশুর প্রাণও বেঁচে যায়, কৃষিতে সঙ্কট দেখা দেয় না আর গরীব মানুষ অর্থও হাতে পায়। এরকমই একটি নির্বোধশ্রেণি ইদানীং বলতে শুরু করেছে, এ বছর বন্যার সময় কোরবানী ঈদ এসেছে। অতএব পশু কোরবানী না দিয়ে সমপরিমাণ অর্থ বন্যার্তদের মাঝে বিলিয়ে দিলে ভালো হয়। এসব কথার পেছনে যে যুক্তি দেখানো হয় তা খোঁড়া যুক্তি। শরীয়তের উদ্দেশ্য ও হেকমতের সামনে এসব যুক্তি চলে না। সাধারণ বিবেচনায়ও এসব যুক্তি ধোপে টেকে না। মুসলমান মাত্রই জানা উচিত যে প্রতিটি মুসলমানের আর্তমানবতার প্রতি দায়িত্ব রয়েছে। ফরজ দান ছাড়াও নৈতিক দায়িত্ব হিসেবে তার অনেক ক্ষেত্রেই সাধ্যমতো দান করা কর্তব্য। যেমন, বলা হয়েছে,

আমি তাদের যে জীবনোপকরণ দিয়েছি তা থেকে তারা ব্যয় করে। (আল কোরআন)

তাদের অর্থসম্পদে বঞ্চিত অভাবীদের জন্য নির্ধারিত অংশ রয়েছে।(আল কোরআন)

সে ব্যক্তি মুসলমান নয় যার প্রতিবেশি না খেয়ে থাকে।

বলা হয়েছে, হে আদম সন্তান তুমি দান করো আমি আল্লাহ তোমাকে দান করব।

আরও বলা হয়েছে, পৃথিবীবাসী ওপর দয়া করো ঊর্ধ্বলোক থেকে আল্লাহ তোমাকে দয়া করবেন।
এধরনের উদ্দীপনা যে ধর্মে দেওয়া আছে সেখানে ফরজ হজ বন্ধ করে গরীবকে টাকা দেওয়া, ওয়াজিব কোরবানী বন্ধ করে গরীবকে টাকা দেওয়া, এসব বাজে চিন্তা, মূর্খতারই প্রমাণ। একজন লোক নিতান্ত নির্বোধ হলেই এসব কথা চিন্তা করতে পারে। নয়ত সে শয়তানের চেলা, যে যুক্তির আড়ালে ইসলামকে বিকৃত করতে চায়।
যারা বন্যার কথা বলে কোরবানী বন্ধ করতে চায় তারা কি বন্যার সময় দেশের অন্য কোনো ব্যয়, অতিরিক্ত খরচ কিংবা অপচয় বন্ধ করার চেষ্টা করেছে? সরকারের সাধারণ কোনো কর্মসূচী বাতিল করে বন্যার্তদের দিকে এর বাজেট পাঠিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব করেছে? দেশের বড় বড় শিল্প, কল-কারখানা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান তাদের আয় থেকে বন্যার্তদের জন্য কী কী উদ্যোগ নিয়েছে সেটাও মানুষ জানে না। আমরা যতটুকু সংবাদ পাই, স্থানীয় সামর্থবান মানুষই বিপন্ন মানবতার সেবায় এগিয়ে এসেছে। বন্যাদূর্গত এলাকার মসজিদের ইমাম, মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক, সাধারণ আলেম-উলামা ও সমাজের নানা শ্রেণি পেশার মানুষ নিজ নিজ সাধ্য অনুযায়ী বন্যার্তদের কিছু হলেও সাহায্য সহযোগিতা দিচ্ছেন। সরকার ব্যাপকভাবে ত্রাণ তৎপরতা ও পূণর্বাসন কার্যক্রম চালাবে সেটাই মানুষের প্রত্যাশা। কোনো কেনো অঞ্চলে বন্যার প্রকোপ অনেক বেশি হওয়ায় সেনাবাহিনী নামানো হয়েছে। এখানে ত্রাণ সাহায্য ব্যাপক করার জন্য আরও বহু উপায়, পথ ও পদ্ধতি প্রস্তাব করা যায়, উদ্যোগ গ্রহণ করা যায়। কিন্তু মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদ উৎসব ও মহান ত্যাগের নিদর্শন পশু কোরবানী রহিত করে দেওয়া এবং এর পরিবর্তে ত্রাণ বিতরণ করার প্রস্তাব কত বড় বাতুলতা তা ভাবতেও অবাক লাগে। আল্লাাহর দেয়া পশু সারা বছর যারা খায়, বছরের নির্দিষ্ট সময় আল্লাহরই হুকুমে তার উদ্দেশ্যে পশু জবাই করা কোরবানির মূল উদ্দেশ্য। পশু কোরবানি না দিয়ে টাকা দান করা ইসলাম সমর্থন করে না। দান এক জিনিস। পশু কোরবানি অন্য জিনিস। যারা ইসলাম সম্পর্কে জানে না তারাই আন্দাজ করে এসব কথা বলে।

কোরবানীর পশু অন্তত নব্বই ভাগ মানুষ অর্থের বিনিময়ে সংগ্রহ করে থাকে। বাকি দশ ভাগ হয়তো নিজেদের ঘরের পশু কোরবানী দেয়। নব্বই ভাগ মানুষ যে দেড় দুই কোটি পশু ক্রয় করে থাকে এর অর্থ কি মানুষের হাতে পৌঁছে না? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এই অর্থনৈতিক তৎপরতা গোটা জাতির জীবনে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে থাকে। কোরবানী কার্যক্রমের সাথে অনেক ব্যবসায়ী, চাকুরীজীবি, শ্রমজীবি মানুষ জড়িত। এসময় তারা বাড়তি সামাজিকতা, গণসংযোগ, আত্মীয়তার হক আদায, উপার্জন ও বদান্যতার সুযোগ লাভ করে। কোরবানীর ক্ষেত্রে এর গোশত সকলের জন্য পবিত্র ও হালাল হওয়ার কারণে মুসলিম জাতির মধ্যে বিশেষ উৎসবের আমেজ পরিলক্ষিত হয়। অন্তত ঈদ মৌসুমে কম বেশি গোশত খায় না বা পায় না এমন মানুষ মুসলিম সমাজে পাওয়া যাবে না। কোরবানীর পশু আল্লাহর জন্য উৎসর্গ করার পর দয়াময় আল্লাহ তা কবুল করত তার বান্দার জন্য মেহমানদারীস্বরূপ এর গোশত ভোগ করার অধিকার দিয়ে দেন। এ যেন আল্লাহর দেওয়া তোহফা। সাধারণভাবে এর বণ্টন প্রায় এমনই হয় যে মানুষ নিজে তা থেকে খায়, প্রতিবেশি বন্ধু-বান্ধব আত্মীয় স্বজনদের দেয়। পাশাপাশি নিজের চেনা অচেনা যত অভাবী মানুষের সাথে তার চলাচল যথা সম্ভব তাদের সবাইকেই এতে শরীক করে। ফলে দেখা যায় কোনো না কোনো সুবাদে সব মানুষই কোরবানী ঈদে শরীক হতে পারে। এ খোদায়ী দাওয়াত বা ঐশী মেজবানী যাদের চোখে ভালো লাগে না অথবা অন্য কথায় যাদের অন্তরে গরু কোরবানী ভালো না লাগার রোগ আছে তারাই কেবল এর বিপক্ষে যুক্তি তুলে ধরার সুযোগ খুঁজে বেড়ায়।

বাংলাদেশের সমাজে বিপুল পরিমাণ দরিদ্র, অসহায়, এতীম শিশু এতীমখানা ও কওমী মাদরাসার আশ্রয়ে পড়ালেখা ও জীবনধারণ করে। যারা মাদরাসার আশ্রয় না পেলে সমাজের বোঝা হিসেবে বেড়ে উঠত। বড় হয়ে বেকার, সন্ত্রাসী ও সমাজবিরোধী শক্তি হিসেবে দেশ ও জাতির জন্য অভিশাপ হয়ে দেখা দিত। এসব শিশু ছাড়াও সমাজের সুবিধবঞ্চিত বহু ছাত্র মাদরাসার কল্যান তহবিল থেকে সাহায্য নিয়ে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠছে। এই তহবিলের অন্যতম উৎস কোরবানীর চামড়া, যা শত বছর যাবত বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ এর প্রাপকরা একাধারে দরিদ্র ও ইলমে দীন শিক্ষার্থী, এ দুটি গুণের কারণে মাদরাসায় দিয়ে অভ্যস্থ। শরীয়তের দৃষ্টিতে যা প্রশংসনীয়। মাদরাসার কর্তৃপক্ষ যাকাত, সদকা, কোরবানীর চামড়া খুব সতর্কভাবে এই দরিদ্রকল্যাণ তহবিলে ব্যয় করেন। নিজেদের বেতন, সম্মানী, নির্মাণ, উন্নয়ন বা সাধারণ খাতে এসব ব্যয় করেন না। গত কয়েক বছর যাবত বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা বন্ধ করে দেওয়ার নানবিধ ফন্দি-ফিকির ইসলামের দুশমনেরা করে চলেছে। এর মধ্যে অপপ্রচার, জঙ্গি অপবাদ ছাড়াও কোরবানীর চামড়া মাদরাসায় না দেওয়ার জন্য ক্যাম্পেইন করা তাদের একটি ষড়যন্ত্র। মিডিয়াতেও একশ্রেণির ধর্মদ্রোহী লোককে দেখা যায় কওমী মাদরাসা বিরোধী অপপ্রচারের সময় কোরবানীর চামড়া নিয়ে খোঁচ দিতে। এরাই ঈদের দিন চামড়া ছিনতাইকে উৎসাহিত করে। দেখা গেছে সারা জীবন যেখানে মাদরাসার তরুণ শিক্ষার্থীরা সুন্নত মোতাবেক কোরবানীর পশু জবাই করে দিত এবং পরবর্তীতে চামড়াটি সংগ্রহ করত, গত ক বছর এ কাজে স্থানীয় ও বহিরাগত ক্যাডাররা বাগড়া দিচ্ছে। কিছু ইসলামবিরোধী এনজিও টাকা পয়সা দিয়ে মাস্তান নিয়োগ করছে চামড়া কেনার জন্য। যারা বাজার দরের চেয়ে কম মূল্য দিয়ে মানুষের বাড়ি থেকে জোর করে চামড়া নিয়ে যাচ্ছে। এমনও দেখা গেছে, কোনো প্রতিষ্ঠানের সংগ্রহকৃত ট্রাক বোঝাই চামড়া রাজনৈতিক পরিচয়ধারী ক্যাডাররা ছিনিয়ে নিয়েছে। তাছাড়া গত তিন চার বছর যাবত মন্ত্রণালয় কর্তৃক চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়ার ফলে দেশীয় ব্যবসায়ীদের হাত থেকে চামড়া ব্যবসা পরিচয় গোপনকারী একটি নেপথ্য শক্তির হাতে চলে যাচ্ছে। ব্যবসায় লসের ভয়ে অনেকে চামড়া বেশি দামে কিনছে না আর নির্দিষ্ট দামে পাচ্ছেও না। অথচ বিশ্ববাজারের সমপর্যায়ের মূল্যে প্রায় সব চামড়া সীমান্ত এলাকায় কেনা বেচা হয়ে দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে। এখানে গরু কোরবানী নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি চামড়ার ওপর দুশমনের শ্যেন দৃষ্টিও লক্ষ করার মতো।

আমরা আশা করি সমাজ ও রাষ্ট্রের দায়িত্বশীলেরা এসব বিষয় দরদের সাথে ভাববেন। জনগণের সুখ-দুঃখ দেখার দায়িত্ব সরকারের। ৯৩ ভাগ মানুষ মুসলমান। তাদের ধর্মীয় অধিকার রক্ষা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। মুসলিম জনসাধারণের জন্য চারপাশের সকল দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি শরীয়ত নির্ধারিত ইবাদত-বন্দেগী করাও অপরিহার্য। সুতরাং নির্বোধদের কথায় শরীয়তের একটি ওয়াজিব বর্জন যেমন জায়েয নয় ঠিক তেমনি দুশমনদের প্ররোচনায় দীনি কর্তব্য ভুলে যাওয়াও চরম গাফিলতি। সতর্কভাবে যথারীতি অবশ্যই কোরবানী দিতে হবে। সচেতনভাবে এর চামড়া দরিদ্র কল্যাণতহবিল আছে এমন কওমী মাদরাসায় পৌঁছে দিতে হবে। জেনে না জেনে, বোঝে না বোঝে যে বা যারা ইসলামের ক্ষতি করতে চায় তাদের বোঝাতে হবে। যারা দুশমন, যারা ষড়যন্ত্রকারী তাদের বিষয়ে সবাইকে খোঁজ-খবর রাখতে হবে। নিজেদের মধ্যে দীনি সমস্যা সঙ্কট ও এসবের সমাধান নিয়ে নিয়মিত মোযাকারা করতে হবে, ৯৩ ভাগ মুসলমানের এই স্বাধীন অধিবাসে ইসলাম ও ঈমান নিয়ে টিকে থাকার স্বার্থেই বিশেষ করে নায়েবে নবী আলেম সম্প্রদায়কে নিছক আল্লাহকে রাজি খুশি করার জন্য সংগঠিত হতে হবে। দীনি ভাবধারা ও ঈমান-আমল রক্ষায় প্রয়োজনে সংঘবদ্ধ উপায়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। সবাইকে এই শপথে বলীয়ান হতে হবে যে, দীনের যেকোনো ক্ষতি আমরা জীবন দিয়ে হলেও রুখব।

qaominews.com/কওমীনিউজ/এএন

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আর্কাইভ