• শনিবার ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    ‘পরীক্ষামূলকভাবে দেশের সার্বভৌমত্ব বিকিয়ে দেয়া হচ্ছে’

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৭ জুলাই ২০২০ | ৯:২৪ অপরাহ্ণ

    ‘পরীক্ষামূলকভাবে দেশের সার্বভৌমত্ব বিকিয়ে দেয়া হচ্ছে’

    ছবি: কওমীনিউজ

    ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুছ বলেছেন, ২০১৮ সালে সম্পাদিত দ্বিপক্ষীয় চুক্তির ভিত্তিতে বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর ‘অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরীক্ষামূলকভাবে’ ব্যবহার করে ভারতের আসাম ত্রিপুরা রাজ্যে পণ্য পরিবহনের জন্য উম্মুুক্ত করে দেয়া হয়েছে। যা বাংলাদেশের চরম স্বার্থবিরোধী। একইসাথে বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দরে ভারতের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার দুরভিসন্ধি। সেইসাথে দেশে ভারতীয় উপনিবেশ কায়েমের সুদূরপ্রসারী চক্রান্ত চলছে।

    আজ সোমবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে ভারতের সাথে ট্রান্সশিপমেন্ট চুক্তি বাতিলের দাবি, স্বাস্থ্যখাতসহ সরকারের বিভিন্ন সেক্টরে সীমাহীন দুর্নীতির প্রতিবাদ ও শিক্ষক, কর্মচারী ও শ্রমিকদের বেতন বোনাস ঈদের আগেই পরিশোধ করার দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।


    মাওলানা ইউনুছ বলেন, ১৯৭৫ সালে ভারত পরীক্ষামূলকভাবে ৪১ দিনের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ফারাক্কা বাঁধ চালুর কথা বলে চালু করে সেই বাঁধ আজ ৪৫ বছরেও বন্ধ হয়নি। এবারও পরীক্ষামূলক চুক্তির মাধ্যমে আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে বিকিয়ে দেয়ার পাঁয়তারা হচ্ছে। ভারত স্বাধীন বাংলাদেশে ব্রিটিশ উপনিবেশের পুনঃমঞ্চায়ন করতে মরিয়া। অথচ নেপাল থেকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ কিনবে, তার জন্য ভারত বাংলাদেশকে অনুমতি দেয়নি। এমন নিমকহারামিদের সাথে কোন চুক্তি হতে পারে না। এ চুক্তি বাতিল করতে হবে।

    গাজী আতাউর রহমান বলেন, নতজানু ও গণবিচ্ছিন্ন সরকার জনগণের অধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। ফলে জাতিসত্ত্বা চরম হুমকির মুখে। ভারতের সাথে কোন চুক্তি নয়। বিনা ট্যারিফে এ গোলামী চুক্তি যারা করছে তারা ভারতের বন্ধু হতে পারে এদেশের জনগণের বন্ধ নয়। এ সরকার এর আগে ৩০ দফা চুক্তি করেছে ভারতের সাথে। সরকার দুর্নীতির ম্যাধমে ক্ষমতায় আসার কারণে রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে সীমাহীন দুর্নীতি চলছে। এই দুর্নীতিবাজদের ক্ষমতাম থেকে অপসারণ করে দেমপ্রেমিক সরকার কায়েম করতে না পারলে দুর্নীতি বন্ধ হবে না।


    অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, স্বাস্থ্যখাতকে তিলে তিলে তলাবিহীন ঝুঁড়িতে পরিণত করা হয়েছে। স্বাস্থ্যখাতে বর্তমান অবৈধ সরকারের কর্তাব্যক্তিদের আশ্রয় প্রশ্রয়ে সাহেদ-সাবরিনারা সৃষ্টি হয়েছে। ভারত ট্রান্সশিপমেন্টের নামে করিডোর সুবিধা নিচ্ছে। এদেশের জনগণ ভারতের সাথে কোন চুক্তি করতে রাজি নয়।

    কওমীনিউজ/বি/মুনশি


    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৯:২৪ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৭ জুলাই ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved