• বৃহস্পতিবার ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    জেনে নিন আল্লামা শফীর উত্তরসূরির পরিচয়

    আমিন মুনশি | ১০ জুলাই ২০২০ | ৯:৫৬ অপরাহ্ণ

    জেনে নিন আল্লামা শফীর উত্তরসূরির পরিচয়

    ছবি: কওমীনিউজ

    সম্প্রতি হাটহাজারী মাদ্রাসার মুঈনে মুহতামিম (সহযোগী পরিচালক) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন আল্লামা শেখ আহমদ। গত বুধবার (১৭ জুন ২০২০) চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসায় মজলিসে শূরার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠকে বর্তমান মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফী আমৃত্যু এ পদে থাকবেন বলেও সিদ্ধান্ত হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যুর পর শেখ আহমদই মাদ্রাসার মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করবেন।

    আল্লামা শেখ আহমদ বাংলাদেশের কওমি অঙ্গনে হাদিসের জনপ্রিয় উস্তাদ হিসেবে প্রসিদ্ধ। তিনি ১৯৫০ সালের ১৫ জানুয়ারী চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী থানার মিরেরখীল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দ্বীনি শিক্ষার প্রাণ কেন্দ্র হাটহাজারী মাদ্রাসায় লেখাপড়া শেষ করেন আল্লামা শেখ আহমদ। পড়াশোনা শেষে টানা ৩৫ বছর পর্যন্ত হাটহাজারী মাদ্রাসাতেই শিক্ষকতা করেন তিনি।


    এরপর চট্টগ্রামের উবাইদিয়া নানুপুর মাদ্রাসায় কয়েক বছর শাইখুল হাদিস হিসেবে অধ্যাপনার পর ২০১৮ সালে তাকে আবার হাটহাজারীতে নিয়ে আসা হয়। তরুণ আলেম ও ছাত্রসমাজ বিষয়টির সমালোচনা করলেও আল্লামা শেখ আহমদকে ওই পদে নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি সুচিন্তিত ও উত্তম সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন অনেক প্রবীণ আলেমগণ।

    কিন্তু কে এই আল্লামা শেখ আহমদ? তাঁর সম্পর্কে জানতে কথা হয় ক’জন প্রবীণ আলেমের সঙ্গে। তারা জানিয়েছেন, আল্লামা শেখ আহমদকে হয়তো বর্তমান ছাত্ররা কম চিনতে পারে। কারণ তিনি এক যুগের বেশি সময় ধরে হাটহাজারী মাদরাসায় পড়াননি। কিন্তু নব্বইয়ের দশক ও শূন্য দশকের শুরুর দিকে তিনি ছিলেন হাটহাজারী মাদরাসার দরসে হাদিসের সম্রাট। তাঁর কাছে হাদিস পড়া ছিল তখনকার ছাত্রদের অন্যতম স্বপ্ন। তাঁর মেধা ও স্মরণশক্তি ঈর্ষণীয়। তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে তালিমাত, বোডিংসহ জামেয়ার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন।


    তারা আরও জানিয়েছেন, আল্লামা আহমদ শফীর খুবই আস্থাভাজন ব্যক্তি আল্লামা শেখ আহমদ। আল্লামা বাবুনগরী হাটহাজারী নিয়োগের আগে শফী সাহেবের পরে শেখ আহমদকেই পরবর্তী মুহতামিম মনে করা হতো। তখন সেটা প্রসিদ্ধ ছিল। মাদরাসা ও ব্যক্তিগত প্রায় সব কাজেই তিনি আল্লামা শফীর সহযোগী ছিলেন। হয়তো আল্লামা শফী তাঁর সবচেয়ে আস্থাভাজন ব্যক্তির হাতেই আমানত রেখে যেতে চেয়েছেন।

    অনুসন্ধানে জানা গেছে, আল্লামা শেখ আহমদ দেশের বিভিন্ন এলাকায়, বিশেষ করে চট্টগ্রামের উল্লেখযোগ্য অনেক কওমি মাদরাসার শূরা সদস্য (পরিচালনা কমিটির সদস্য) এবং শীর্ষ আলেমদের শিক্ষক। এমনকি তিনি হাটহাজারী মাদরাসার বর্তমান চাকরিরত দু-তৃতীয়াংশ শিক্ষকদের শিক্ষক। তিনি আল্লামা আহমদ শফীর বিশেষ খলিফাও।


    এক নজরে আল্লামা শেখ আহমদ
    আল্লামা শেখ আহমদ ১৯৫০ সালে হাটহাজারীর দক্ষিণ মীরেরখিল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শুরু থেকে দাওরা পর্যন্ত তিনি দারুল উলূম হাটহাজারী মাদরাসায় পড়াশোনা করেন। পড়াশোনা শেষ করে হাটহাজারী মাদরাসাতেই তাঁর শিক্ষকতা জীবন শুরু হয়। দীর্ঘকাল তিনি হাটহাজারীতে দরস দেন। প্রসিদ্ধ আছে, তিনি পড়াননি সিলেবাসে এমন কোনো কিতাব নেই।

    ২০০৪ সালে কিছু ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অনেকটা বাধ্য হয়েই থাকে হাটহাজারী ছাড়তে হয়।

    এরপর ২০০৪ সালে জামিয়া ওবাইদিয়া নানুপুরে শায়খুল হাদিস হিসেবে পাঠদান করেন। সর্বশেষ গত তিন বছর আগে তাকে পুনরায় হাটহাজারী মাদরাসায় নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি বর্তমানে তিরমিজি শরিফ এবং বাবুনগরীর পাশাপাশি বুখারি শরিফের এক তৃতীয়াংশ পাঠদান করে আসছেন।

    আল্লামা শেখ আহমদের ছাত্রবৃন্দ

    ঢাকা ফরিদাবাদ মাদরাসার পরিচালক ও শায়খুল হাদিস, বেফাকের বর্তমান মহাসচিব আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস। ঢাকা শায়খ জাকারিয়া ইসলামিক রিচার্স সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান মুফতি মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ।

    জামেয়া রাহমানিয়া ঢাকার প্রধান মুফতি, মুফতি হিফজুর রহমান। মাওলানা আজিজুল হক্ব আল মাদানী। ব্রাহ্মণবাড়িয়া দারুল আরকাম মাদরাসার পরিচালক মাওলানা সাজিদুর রহমান। দারুল উলূম হাটহাজারীর সিনিয়র মুফতি, মুফতি কিফায়াতুল্লাহ।

    দারুল উলূম হাটহাজারীর মুহাদ্দিস, মাওলানা ওমর মেখলী। দারুল উলূম হাটহাজারীর মুফতি ও মুহাদ্দিস, মুফতি জসিম উদ্দীন। দারুল উলূম হাটহাজারীর সিনিয়র শিক্ষক, মাওলানা আহমদ দিদার কাসেমী। নাজিরহাট বড় মাদসার মুহাদ্দিস ও নায়েবে মুহতামিম, মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমী।

    রচিত গ্রন্থাবলী : ১- تنظيم المخزون لأسماء العلوم والفنون ২- اصول حديث مع اصول تفسير ৩- قرآنى معلومات ৪- تنظيم الدراية فى الاحاديث الموضوعة ৫- تقرير ابوداؤد ৬- تقرير ترمذى ৭- منهاج البارى شرح بخارى جـ ১-২ ৮- ضياء البردة شرح قصيدة بردة

    তাসাউফ তথা আধ্যাত্মিক পরিচয়

    আল্লামা শেখ আহমদ মুফতিয়ে আজম, মুফতি ফয়জুল্লাহ রহ. এর হাতে বায়াত গ্রহণ করেন। মুফতি ফয়জুল্লাহ রহ.-এর ইন্তেকালের পর মাওলানা হাফিজুর রহমান (প্রকাশ পীর সাহেব) হুজুরের হাতে বায়াত গ্রহণ করেন। যিনি কুতুবে আলম আল্লামা জমীর উদ্দীন রহ. এর খলিফা ছিলেন।

    আল্লামা জমীর উদ্দীন সাহেব রহ. ইমাম রব্বানী রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী রহ. এর খলিফা ছিলেন। কয়েক বছর অতিবাহিত হওয়ার পর পীর সাহেব হুজুর রহ. আল্লামা শেখ আহমদকে খেলাফত প্রদান করেন। তারপর দারুল উলূম হাটহাজারীর মুহতামিম আল্লামা শাহ আহমদ শফী এর হাতে বায়াত গ্রহণ করেন এবং খেলাফত লাভ। এছাড়া আল্লামা নোমান সাহেব পটিয়াভী রহ. থেকেও খেলাফত অর্জন করেন।

    কওমীনিউজ/মুনশি

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৯:৫৬ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved