• রবিবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    কোকাকোলা মাদ্রাসা নিয়ে তাবলিগের দু’গ্রুপ মুখোমুখি

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৩ জুন ২০২০ | ৮:৫৮ অপরাহ্ণ

    কোকাকোলা মাদ্রাসা নিয়ে তাবলিগের দু’গ্রুপ মুখোমুখি

    কোকাকোলা মাদরাসার নির্মাণাধীন ভবন

    ঢাকার গুলশান- বসুন্ধরা অঞ্চলে অবস্থিত মঈনুল ইসলাম মাদরাসা (কোকাকোলা মাদরাসা) নিয়ে তাবলীগের দুগ্রুপের মুখোমখি অবস্থান। মাদরাসাটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে যে কোন সময় ঘটে যেতে পারে কাকরাইল ও টঙ্গির মতো ন্যাক্করজনক ঘটনা। উভয় গ্রুপই মাদরাসার ভেতরে অবস্থান করছে এবং মাদরাসা নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার টেষ্টা করছে। প্রতিষ্ঠানটির মূল ভবনের নির্মাণ কাজ চলায় মসজিদের নীচ তলায় সাদ গ্রুপ এবং দুতলায় সাদ বিরোধী গ্রুপ অবস্থান নিয়েছে।

    সাবেক মুহতামিম মুফতি আতাউর রহমান দীর্ঘদিন যাবত মাদরাসাটি পরিচালনা করেন। গতকয়েক বছর পূর্বে তাবলীগ ও কাকরাইলে বিরোধ ও বিভক্তি দেখা দিলে মুফতি আতাউর রহমান  দিল্লির মাওলানা  সাদের অনুসারিদের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করেন। ফলে প্রতিষ্ঠানটিকে বেফাক ও হাইয়াতুল উলিয়ার সসদ্য পদ হারাতে হয়। মাদরাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের মাঝে যারা সাদ বিরোধী ছিলেন, তারা অনেকেই স্বেচ্চায় চলে যান্। আবার অনেককে বহিস্কারও করা হয়। সম্প্রতি মুফতি আতাউর রহমানের মৃত্যু হলে তার শ্বশুড় মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক কাসেমীকে মুহতামিমের দায়িত্ব দেয়া হয়। মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসুদকে প্রধান এবং মুফতি ইমাদুদ্দীন, মুফতি জিয়া বিন কাসেম, মুফতি উসামা. ওয়াসিফুল ইসলাম ও এড: আব্দুল কুদ্দুসকে সদস্য করে উপদেষ্টা কমিটি এবং ওই এলাকার কাউন্সিলর ও মাদরাসার সিনিয়র চরজন শিক্ষকসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নিয়ে ১৬ সদস্য বিশিষ্ট পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়।


    এদিকে সাদবিরোধী শিক্ষক যারা ইতিপূর্বে চলে গিয়েছেলেন, তারা মাওলানা আতাউল্লাহকে মুহতামিম বানিয়ে মুফতি সেলিম উদ্দীনসহ কয়েকজন ছাত্র-শিক্ষক মাদরাসার ভিতরে অবস্থান নেন। শা্ইখ মাওলানা মাহমুদুল হাসানকে প্রধান তাছাড়া চট্টগ্রামের মুফতি আহমদুল্লাহ, খুলনার মুফতি গোলাম রহমা ও ঢাকার মাওলানা মাহফুজুল হককে সদস্য করে উপদেষ্টা কমিটি এবং মাওলাান নুর হোসেন কাসেমীকে সভাপতি করে পরিচালনা কমিটি গঠন করে।

    কওমীনিউজকে মাদরাসার ভিতরে অবস্থানরত সাদবিরোধী গ্রুপের মুফতি সেলিম চরম উত্কণ্ঠা ও আশঙ্কার কথা বলেন। আগামী দু-একুদিনের মধ্যে তাদেরকে মাদরাসা থেকে বের করে দেয়ার পায়তারা চলছে বলেও তিনি জানান। তবে অপরপক্ষ সংঘর্ষে জড়ালেও তারা কোন ধরনের সংঘর্ষে জড়াবেন না এবং উলামাদের কমিটি যা সিদ্ধান্ত নেবেন তাই তারা মেনে নিবেন।


    এদিকে সাদপান্থীদের পক্ষে মাওলানা আব্দুল্লাহ মনসুর কওমীনিউজকে বলেন, মাদরাসার সকল কাগজ-পত্রে কাকরাইল ও নিজামুদ্দীনের মুরুব্বীদের পরামর্শে পরিচালনা হওয়ার কথা রয়েছে। সুতরাং যারা কাকরাইল ও দিল্লির নিজামুদ্দীনের পরামর্শ মানবে না তাদের ওই মাদরাসায় থাকার কোন বৈধতা নেই। গুলশান ও ভাটারা এরিয়ার ডিসি ও ওই এলাকার কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ঢালীও বিষয়টি অবগত আছেন বলে তিনি জানান।

    কাকরাইল ও নিজামুদ্দীনের অনুমোদন ছাড়া মাদরাসাটির নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার দালিলিক কোন বৈধতা নেই বলেওমীনিউজকে  কমিশনার নজরুল ইসলাম ঢালী মন্তব্য করেন।


    কওমীনিউজ/এইচ

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৮:৫৮ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০৩ জুন ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved