প্রচ্ছদ রাজনীতি

ইসলামই সমতাবাদী সমাজের ধারণা সৃষ্টি করেছে: মাওলানা নেজামী

স্টাফ রিপোর্টার | রবিবার, ১২ নভেম্বর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 398 বার

ইসলামই সমতাবাদী সমাজের ধারণা সৃষ্টি করেছে: মাওলানা নেজামী

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়াম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী বলেছেন, একমাত্র ইসলামই সমতাবাদী সমাজের ধারণা সৃষ্টি করতে পেরেছে। দেশের উন্নতি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে বিভেদ ও অসংগতি পরিহার করে সকলকেই সততা, নীতিনিষ্ঠা, কর্মশৃংখলা, আত্মবিশ^াস নিয়ে যে কোনো ত্যাগ স্বীকারের প্রবৃত্ত হওয়ার জন্যে সর্বোতোভাবে প্রয়াস চালাতে হবে। অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা ও রাজনীতিক্ষেত্রে সকলকে সংঘবদ্ধ হতে হবে। সকল নাগরিকের ধর্মীয়, তমদ্দুনিক, প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহার করে দেশের উন্নতি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির জন্য কাজ করার ক্ষেত্র তৈরির লক্ষ্যে পারস্পরিক প্রতিহিংসা এবং দ্বন্দ্ব পরিহার করে দেশ, জাতি ও জনগণের স্বার্থে কাজ করতে ব্রতী হওয়া সংকল্প হওয়া উচিৎ।

তিনি বলেন, অদৃষ্টের নির্মম পরিহাস, যে নজিরবিহীন ত্যাগ স্বীকার ও সংগ্রামের পর গণতান্ত্রিক ও বঞ্চনামুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয়ে স্বাধীনতালাভকারী বাংলাদেশে আজ গণতান্ত্রিক রীতিনীতি ও মৌলিক আধিকার মারাত্মকভাবে লঙ্গন করা হচ্ছে। গণতান্ত্রিক চেতনা আজ ভুলুন্ঠিত। এতে নৈতিক চেতনা ও গণতান্ত্রিক আদর্শবোধের নিতান্ত দুর্বলতার নগ্ন বহিঃপ্রকাশ ঘটছে। তিনি গণতন্ত্র সমুন্নত রাখার দীপ্ত শপথ গ্রহণের জন্যে দেশপ্রেমিক সকল রাজনেতিক দল, সংগঠন ও ব্যক্তিত্বের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন যে, গণতান্ত্রিক চেতনার বিরুদ্ধে অব্যাহত ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তোলার বিকল্প নেই। গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক, শাসনতান্ত্রিক ও অন্যান্য অধিকার ও স্বার্থ সংরক্ষণের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। তাছাড়া সুদৃঢ়, স্থির, অচঞ্চল, দূরদর্শী অণির্বাণ দীপ শিখার মতো সদাজাগ্রত, সচেতন ও দূর্নীতিমুক্ত নেতৃত্ব গড়ে তুলতে হবে।

 বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর-১৭)  বাদ মাগরিব পুরানা পল্টন্থ মাওলানা আতহার আলী রহ. মিলনায়তনে নেজামে ইসলাম পার্টি আয়োজিত এক সভায় সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাওলানা একেএম আশরাফুল হক, মুফতি এএনএম জিয়াউল হক মজুমদার, আলহাজ্জ মোঃ ওবায়দুল হক ও নুরুজ্জামান প্রমূখ।

মাওলানা নেজামী গুম ও খুনের ঘটণা ক্রমাগত বেড়ে যাওয়ায় গভীর উদ্বেগের পুনরাবৃত্তি করে বলেন যে, এসব ঘটণায় দেশের শক্তিমানদেরই বীভৎস্য চেহারা লুক্কায়িত রয়েছে। নিপীড়িত মানুষের নিঃশংক প্রতিবাদেরও সম্ভাবনা তিরোহিত। নানাভাবে সৃষ্ট নিবর্তমূলক বেড়াজালে আটক মানুষের পক্ষে সুস্থভাবে নিঃশ^াস গ্রহণও অসম্ভব হয়ে পড়েছে। অযাচিত নিয়ম-শৃংখলয় মানুষের শ^াসরোধ করে ফেলেছে। নিপীড়িত নির্যাতিত মানবাত্মার আক’ল ক্রন্দনে আকাশ-বাতাস মূখরিত হয়ে উঠেছে।

তিনি বলেন, দেশ এখন দুস্কৃতকারীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। দেশে মাস্তানদের অবাধ পদচারণার সুযোগ ও খুনের প্রবনতা বেড়ে চলেছে অস্বাভাবিকহারে। তাই আজ ভেসে আসছে অপরাধের শিকার মজলুমদের আর্ত চিৎকার, আঘাত হানছে আকাশের দ্বারে উৎপীড়িত মানুষের আহাজারী এবং সর্বত্র ধ্ব¦নীত হচ্ছে ক্রন্দনরোল। ভেসে যাচ্ছে চিরায়ত ইসলামী মূল্যবোধ, ধ্যান-ধারণা, চরিত্র, ধর্ম ও আদর্শ বিরোধিতার খবর। বিপন্ন হয়ে পড়ছে নৈতিক মেরুদন্ড। মানুষ পঙ্গুত্ব বরন করতে বাধ্য হচ্ছে ইসলাম ভিত্তিক নীতি-নৈতিকতায়।

qaominews.com/কওমীনিউজ/জে/এইচ

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

আর্কাইভ