• বৃহস্পতিবার ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    আল্লামা শফীর বিরুদ্ধে মামলা, হুঁশিয়ারি বাবুনগরীর

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৯ আগস্ট ২০২০ | ১০:০১ অপরাহ্ণ

    আল্লামা শফীর বিরুদ্ধে মামলা, হুঁশিয়ারি বাবুনগরীর

    ছবি: সংগৃহীত

    শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বিরুদ্ধে মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমী কর্তৃক ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা করায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সকল নেতা-কর্মীর পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

    আজ ৯ ই আগস্ট রোববার সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, আল্লামা শফী দেশের সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেম। হযরতের জীবনের বেশীরভাগ অংশ তাদরীস ও তালীমের মধ্যে অতিবাহিত হয়েছে। হযরত জীবনের শেষ প্রান্তে এসেও থেমে থাকেননি। দাওয়াতি কাজে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে চলেছেন। হযরতের জন্য দেশে আলেম-ওলামার সম্মান এবং মর্যাদা পূর্বের চেয়ে বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। হযরতের অবদানে বাংলাদেশের সকল মাদারেসে কওমীয়্যার পড়াশোনার মান বেড়ে চলেছে ক্রমাগত।


    মহাসচিব আরও বলেন, আল্লামা শফী মুসলিমবিশ্বের এক আধ্যাত্মিক রাহবার। যার বর্ণাঢ্য জীবনের প্রতিচ্ছবি মানুষের চোখে ভেসে আছে। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে হযরতের বর্ণালী জীবনকে কালিমায় লেপটে দিতে উঠেপড়ে লেগেছে মাদারিসে কওমীয়্যার একদল ষড়যন্ত্রকারী দুশমনচক্র। তারা ওলামায়ে কওমীয়্যার মধ্যে ফাটল সৃষ্টি করতে লেগে আছে।

    তিনি আরও বলেন, মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমী নাজিরহাট বড় মাদরাসার একজন শিক্ষক, হাটহাজারী এলাকায় তার বাড়ি। সে আল্লামা শফীর সরাসরি ছাত্র। নাজিরহাট বড় মাদরাসার সাবেক মহাপরিচালক মাওলানা ইদরিস সাহেবের ইন্তেকালের পর গত ০৭-০৬-২০২০ রোজ রবিবার সকাল দশটা হতে প্রায় দু’ঘন্টা পর্যন্ত আল্লামা শফীর কার্যালয়ে নাজিরহাট বড় মাদরাসার শুরা বৈঠক হয়। উক্ত বৈঠকে মতামতের ভিত্তিতে নাজিরহাট বড় মাদরাসার মুতাওয়াল্লি মাওলানা সলিমুল্লাহ সাহেবকে মাদরাসার পরিচালক ঘোষণা করেছেন। সাথে সাথে মাওলানা সলিমুল্লাহ সাহেবকে মুহতামিম হিসেবে মেনে নিয়ে এলাকাবাসীকে মাদরাসায় সহযোগিতা করতে বলে ভিডিও বার্তা দিয়েছিলেন আল্লামা আহমদ শফী।


    বিবৃতিতে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, মজলিসে শুরার সিদ্ধান্ত এবং শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী হাফিজাহুল্লাহর এ আদেশ নাজিরহাট বড় মাদরাসার আসাতেজায়ে কেরাম মেনে নিলেও মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমী সাহেব মেনে না নিয়ে আল্লামা শফী সাহেবের শানে একাধিকবার ফেসবুক ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে হযরতের সাথে বেয়াদবিতে শামিল হয়েছেন। শেষ পর্যন্ত বেয়াদবির চূড়ান্ত শেকড়ে গিয়ে জাতির এই আধ্যাত্মিক মুরব্বিকে প্রধান আসামি করে ১৯ (ঊনিশ) জনের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা দায়ের করে।

    আল্লামা বাবুনগরী বলেন, আমীরে হেফাজতের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা করায় হাবিবুর রহমান কাসেমীকে চরম খেসারত দিতে হবে। আমি হেফাজতের সকল নেতাকর্মীর পক্ষ থেকে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে তাকে আল্লামা শফীর কাছে এসে ক্ষমা চেয়ে মামলা তুলে নিতে হবে। অন্যথায় হেফাজতের পক্ষ থেকে আমরা আইনি ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবো।


    কওমীনিউজ/বি/মুনশি

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ১০:০১ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved