• বুধবার ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    আমিরাতের বিরুদ্ধে যা বলছে ইরান ও তুরস্ক

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক | ১৪ আগস্ট ২০২০ | ১১:৩২ অপরাহ্ণ

    আমিরাতের বিরুদ্ধে যা বলছে ইরান ও তুরস্ক

    ছবি: প্রতীকী

    যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার সমঝোতায় পৌঁছানোয় সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ইরান ও তুরস্ক। ইরান বলছে, এই সমঝোতা আবুধাবির কৌশলগত নির্বুদ্ধিতা। আর তুরস্ক বলেছে, আমিরাতের এই ভণ্ডামি কোনও দিনও ক্ষমা পাবে না। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

    ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা ঘোষণার পর ইসরায়েল এখন পর্যন্ত তিনটি আরব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার সমঝোতায় পৌঁছেছে। ১৯৭৯ সালে মিসর ও ১৯৯৪ সালে জর্ডানের পর বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে ইসরায়েলের সমঝোতায় পৌঁছানোর কথা জানানো হয়।


    ওয়াশিংটনের মধ্যস্থতায় ইসরায়েল-সংযুক্ত আরব আমিরাত চুক্তিকে দেশ দুটির কৌশলগত নির্বুদ্ধিতা আখ্যা দিয়েছে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইসরায়েলের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ওই চুক্তির মধ্য দিয়ে ফিলিস্তিনি জনগণ ও সব মুসলমানের পিঠে অন্যায়ভাবে ছুরি চালিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।’ শুক্রবার ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ফিলিস্তিন ভূখণ্ড ও মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল-আকসা মসজিদ মুক্ত করার লক্ষ্যে গত সাত দশক ধরে যে প্রতিরোধ সংগ্রাম চলে আসছে, তা আজ হোক কিংবা কাল, ইসরায়েলসহ তার অপরাধের সব সহযোগীকে একসঙ্গে গ্রাস করবে।

    ইসরায়েলকে অবৈধ ও মানবতাবিরোধী রাষ্ট্র আখ্যা দিয়ে ইরানি বিবৃতিতে বলা হয়, তাদের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে সংযুক্ত আরব আমিরাত চরম বিপজ্জনক কাজ করেছে। এই ঘটনার জের ধরে পারস্য উপসাগরে সম্ভাব্য যেকোনও পরিণতির জন্য আবুধাবিসহ এ অঞ্চলে তার সহযোগী সরকারগুলোকে দায়ী থাকতে হবে। ইসরায়েল-আমিরাত চুক্তির পরিণতিতে এ অঞ্চলের প্রতিরোধ অক্ষ আগের চেয়ে বেশি শক্তিশালী হবে বলে আশা প্রকাশ করে ইরানের বিবৃতিতে বলা হয়, ইহুদিবাদী ইসরায়েল ও তার তাঁবেদার আরব শাসকদের বিরুদ্ধে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে জনগণের ঐক্য ও সংহতি শক্তিশালী হবে।


    এদিকে কয়েক দশক ধরে ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক যোগাযোগ বজায় রাখলেও গত কয়েক বছরে ফিলিস্তিন ইস্যুতে নিজেকে আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ন হিসেবে চিত্রিত করতে চাইছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান। এ বছরের জানুয়ারিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার বিতর্কিত মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা ঘোষণা করলে এরদোয়ান বলেন, তুরস্ক ওই প্রস্তাব কখনোই মেনে নেবে না। আরব রাষ্ট্রগুলো ফিলিস্তিন ইস্যুর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে বলেও অভিযোগ তোলেন তিনি।

    বৃহস্পতিবার ইসরায়েল-সংযুক্ত আরব আমিরাত চুক্তি স্বাক্ষরের প্রতিক্রিয়ায় তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, এই কুটিল আচরণের কথা ইতিহাস এবং এই অঞ্চলের মানুষের বিবেক কখনোই ভুলে যাবে না আর ক্ষমাও করবে না। শুক্রবারের এই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নিজেদের সংকীর্ণ স্বার্থে ফিলিস্তিন ইস্যুতে বিশ্বাসঘাতকতা করেও সংযুক্ত আরব আমিরাত একে ফিলিস্তিনিদের জন্য আত্মত্যাগ করার মতো কাজ হিসেবে উপস্থাপন করতে চাইছে।’


    কওমীনিউজ/এম

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ১১:৩২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০

    qaominews.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১ 
    advertisement

    Editor : A K M Ashraful Hoque

    51.51/A,, Resourceful Paltal City, Purana Paltan, Dhaka-1000
    E-mail : qaominews@gmail.com

    ©- 2020 qaominews.com all rights reserved